এলোভেরার উপকারিতা | মুখের জন্য এলোভেরার উপকারিতা

এলোভেরার উপকারিতা | মুখের জন্য এলোভেরার উপকারিতা
এলোভেরার উপকারিতা | মুখের জন্য এলোভেরার উপকারিতা


এলোভেরার উপকারিতা:- আমাদের সমাজের মধ্যে এমন কোন মানুষ নেই যে কিনা সুন্দর থাকতে চাই। তার জন্য আবার অনেকেই ফার্মেসি কিংবা অন্যান্য কসমেটিক্স এর দোকান থেকে ক্রয় করে বিভিন্ন প্রকার কেমিক্যাল পণ্য ব্যবহার করে তাকে।

আবার অনেকেই আছে যারা কিনা প্রাকৃতিকভাবে নিজের ঘরে তৈরি করে প্রাকৃতিক উপাদান যার মাধ্যমে মূলত নিজের ত্বককে উজ্জ্বল এবং চমৎকার করতে চায়। আবার অনেকেই চাই ত্বককে উজ্জ্বল করার সাথে সাথে নিজের শরীরের গঠন ফিট রাখতে।

কম বেশি আমরা সকলেই জানি প্রাকৃতিক উপাদান যেটা ব্যবহার করার মাধ্যমে মানুষের ত্বক উজ্জ্বল ও চমৎকার করতে চাই সেটা হচ্ছে এলোবেরা। অর্থাৎ মূলত এই এলোভেরা ব্যবহার করে প্রাকৃতিক উপাদান এর মাধ্যমে নিজের শরীরকে চমৎকার করতে চাই অনেকেই।


আমাদের মধ্যে এমন অনেক লোক রয়েছে যারা কিনা এই অ্যালোভেরা সম্পর্কে এখনো জানেনা। এই এলোভেরা যেটা কিনা মানুষের ত্বককে চমৎকার করে তোলে এটা আজ থেকে প্রায় ছয় হাজার বছর আগে উৎপত্তি হয়েছিল।

তখন থেকেই এর ব্যবহার চলে আসে বেষজ চিকিৎসার মাধ্যমে। মূলত এই এলোভেরার পাতা গুলো বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ত্বককে সুন্দর ও চমৎকার করে তোলার।

আমি যদি আপনাদের সাথে এলোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে তুলে ধরি তাহলে হয়তো বলা শেষ করা যাবে না। আগেরকার সময় অর্থাৎ প্রাচীনকাল থেকেই এর ব্যবহার রূপচর্চার পাশাপাশি মানুষের শরীর চমৎকার করে তোলার কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

আপনি যদি প্রাচীন গ্রীস কিংবা ভারতের দিকে লক্ষ্য করেন তাহলে দেখতে পাবেন তারা বিশেষ করে বেসজ চিকিৎসার ক্ষেত্রে এই এলোভেরার ব্যবহার করে থাকে। এমনকি অনেক কান্ট্রিতে এলোভেরা কে বিভিন্ন সৈন্যকে তাদের ক্ষতবিক্ষত জায়গাগুলোতে এই এলোভেরার ব্যবহার করে থাকে।

মূলত আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে বিশেষ করে যে বিষয়টা শেয়ার করব সেটা হচ্ছে এলোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে। যেটা হয়তো আমরা এখনো পর্যন্ত অনেকেই জানিনা।

সুতরাং আপনি যদি এই সব বিষয় নিয়ে বিস্তারিতভাবে জানতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে আর টি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে। তাহলে চলুন আর দেরি না করে এবং অযথা কথা না বলেই শুরু করা যাক।


এলোভেরা কি?

এই লোকেরা হচ্ছে একটি সরজ উদ্ভিদ যেটা কিনা মূলত রূপচর্চার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সহজ ভাষায় বলতে গেলে এমন একটি পাতা যার মধ্যে কিনা অনেক গুণ রয়েছে অনেক চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

এলোভেরার পাতাগুলো মূলত করাতের মতই কাটাযুক্ত। আপনি যদি করার সম্পর্কে জানেন তাহলে অবশ্যই লক্ষ্য করেছেন করাতের একপাশেই কাটাযুক্ত রয়েছে। কিন্তু এলোভেরার পাতাগুলোতে দুই পাশেই আপনি কাটা দেখতে পাবেন।

তবে অ্যালোভেরার একটি বোটানিক্যাল নাম রয়েছে যেটা হচ্ছে "অ্যালো বার্বাডেনসিস মিল" । হয়তো আমরা অনেকেই আফ্রিকার জঙ্গলের কথা শুনেছি বিশেষ করে সেখানে এটা পাওয়া যায়।

তবে বর্তমান সময়ে আমাদের দেশে অনেক জায়গায় আমি এটা দেখতে পেয়েছি। তবে আশা করি আমাদের বিভিন্ন জায়গাতে এর ফলন করা হয় আপনারা জানলে অবশ্যই আমাকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।


এলোভেরার উপকারিতা

হয়তো আপনি যদি আর্টিকেলটি এ পর্যন্ত পড়ে আসেন তাহলে হয়তো এলোভেরা সম্পর্কে অনেক অজানা বিষয় সম্পর্কে আপনি জানতে পেরেছেন। কিন্তু হয়তো আপনি এখনো জানেন না এলোভেরার উপকারিতা কি? তাহলে মূলত এই প্যারা থেকে এটা জানতে পারবেন।

আপনি অবাক হয়ে যাবেন এলোভেরার পাতার মধ্যে যে সমস্ত উপাদান কিংবা উপকারী যে সমস্ত বিষয়াদি রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে অবগত হন। এলোভেরার মধ্যে রয়েছে ভিটামিন, মিনারেল, সুগার, এনজাইম এবং সেটি এসিড সহ নানা প্রকার উপাদান।

যেগুলো কিনা মূলত আমাদের রূপচর্চা এবং উজ্জ্বল তক সহ আরো নানা শরীরের উপকার করতে সাহায্য করে। সুতরাং এখন আমি আপনাদের সাথে সেইসব বিষয় সম্পর্কে অবগত করতে যাচ্ছি। তাই আর দেরি না করে আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।


এলোভেরা তে কি কি উপকারিতা রয়েছে | এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা 

  • এই এলোভেরা টি সবচেয়ে বেশি যেখানে ব্যবহৃত হয়ে থাকে সেটা হচ্ছে রূপচর্চা। অনেক প্রাচীনকাল থেকেই এর ব্যবহার রূপচর্চা কিংবা ত্বকে উজ্জ্বল করার জন্য লোকজন বেশি ব্যবহার করে থাকে। আপনি চাইলে অনায়াসে এর ব্যবহার করতে পারেন।
  • আপনি যদি এলোভেরা কে দুই টুকরো করেন তাহলে সেখানে কিছু জেল দেখতে পাবেন। মূলত এই জেলগুলো আপনার ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে সক্ষম। বিশেষ করে এইগুলোই মানুষ বেশি ব্যবহার করে থাকে।
  • আপনার শরীরের যেকোন প্রকার দাগের জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন এলোভেরা জেল। এটি মূলত যে কোন বয়সের লোকজনে ব্যবহার করতে পারবে। আশা করি আপনি যদি এর ব্যবহার শুরু করে দেন তাহলে আমি মনে করি খুব দ্রুত আপনার ত্বকের যে সমস্ত সমস্যা রয়েছে সবগুলোই খুব দ্রুত ভালো হয়ে যাবে। আবার এটা যেহেতু প্রাকৃতিকভাবে অনেক সমস্যার সমাধান করে তাই এটাকে প্রাকৃতিক ক্লিনজার বলা হয়ে থাকে।
  • এলোভেরা আপনার ত্বকের ভিতর থেকে মসৃণ করতে সাহায্য করবে এবং যে সমস্ত মৃত কোষ রয়েছে সেগুলো অ্যাভয়েড করতে সাহায্য করে। এবং আপনার শরীরের নতুন কোষ তৈরি করতে সাহায্য করে।
  • এলোভেরা জেল কে আপনি নাইট ক্রিম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। রাতে শোয়ার সময় মুখটি ভালোভাবে ধুয়ে তারপর এলোভেরা জেল লাগিয়ে নিন এবং পরের দিন সকালে উঠে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটা যদি আপনি নিয়মিত করেন তাহলে আপনি অল্প দিনের মধ্যেই অনেক পরিবর্তন দেখতে পাবেন এবং উজ্জ্বল চেহারা পাবেন আশা করি।
  • নিয়মিত সূর্যতাকে যে সমস্ত বিকিরণ পৃথিবীতে আসে সেখানে আল্ট্রা বায়োলেট এবং গামা রশ্মি যেগুলো রয়েছে সেগুলো ত্বকের জন্য অনেক ক্ষতিকর। সুতরাং সেগুলো থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্যও আপনি এলোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন।
  • তাছাড়া এলো ঘরের মধ্যে রয়েছে অনেক পরিমাণে এনটি এক্সিডেন্ট যেগুলো কিনে আপনার ত্বকের ময়েশ্চার ধরে রাখতে সাহায্য করবে। তাছাড়া আপনি যদি এলোভেরা আপনার ত্বকের জন্য ব্যবহার করেন তাহলে ত্বকের ইনফেকশন দূর হওয়ার সাথে সাথে আপনার ত্বকের বলিরেখাও দূর হয়ে যাবে।
  • এছাড়া আপনি কি জানেন অ্যালোভেরা রয়েছে অনেক পরিমাণ খনিজ পদার্থ যেগুলো কিনা আপনার ত্বকের কোষ ধরে রাখতে সাহায্য করবে এবং আপনার ত্বকের কোষ খারাপ হওয়া প্রতিরোধ করতে সাহায্য করবে। এছাড়া এলোভেরা রক্তের সার্করার মাত্রা কমিয়ে দেই।
  • তাছাড়া এলোভেরার মধ্যে বিদ্যমান রয়েছে পলিস্যাকারাইট,মেনাস এবং লেকটিন। যেটা কিনা মূলত আপনার ত্বকের ব্রণ এবং যে সমস্ত ব্রনের কালো দাগ রয়েছে সেগুলো দূর করতে সাহায্য করে।

মুখের জন্য এলোভেরার উপকারিতা এবং ব্যবহারের নিয়ম

সৌন্দর্যের জগতে এলোভেরার অবদান যে কতটুকু সেটা আপনি অস্বীকার করতে পারবেন না। আমরা যদি সঠিকভাবে এলোভেরার ব্যবহার করে থাকি তাহলে আপনি পেয়ে যাবেন আপনার ত্বকের হাজার সমস্যার সমাধান।

সুতরাং আপনি যদি আপনার ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার জন্য এলোভেরা ব্যবহার করেন তাহলে আপনি ত্বকের উজ্জ্বল এবং চমৎকার চেহারা পেতে পারেন।

তাহলে চলুন এখন জেনে নেয়া যাক মুখ কিংবা ত্বকের উজ্জ্বলতার জন্য এলোভেরা ক্ষতটুকু উপকার। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে সেই বিষয়টা একটু জেনে নেয়া যাক।

  • আপনার ত্বক কি দিন যত যাচ্ছে তত শুকনো হয়ে যাচ্ছে? তাহলে সেটার সমাধান হবার জন্য আপনি সর্বপ্রথম এলোভেরার মধ্যে যে জেল গুলো পাওয়া যায় সেগুলো সর্বপ্রথম বের করে নিন। তারপর আপনার মুখ ভালোভাবে দেওয়ার পরে এলোভেরা জেল মেখে নিন এবং ১০-১৫ মিনিট ধরে অপেক্ষা করুন। আপনি যদি এরকম কয়েকদিন করেন তাহলে আপনি অনেক চেঞ্জ দেখতে পারবেন আপনার মুখে।
  • কম বেশি আমরা সকলেই জানি এলোভেরার মধ্যে অনেক ধরনের ভিটামিন বিদ্যমান রয়েছে যেমন ভিটামিন এ ভিটামিন বি এবং ভিটামিন সি। যেগুলো কিনা আপনি মুখের মধ্যে ব্যবহার করলে হয়তো অনেক উপকার হতে পারে।
  • তাছাড়া আপনি এলোভেরার মধ্যে পেয়ে যাবেন ভিটামিন ই এবং ব্যাটা কেরুটিন এর মত এন্টি এক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। যেটা কিনা মূলত আপনার ত্বককে ফ্রি রেডিক্যাল থেকে মুক্ত করতে সাহায্য করবে। যার কারণে আমাদের ত্বকের মধ্যে বয়সের কারণে যে বলিরেখা এবং চাপ যেটা রয়েছে সেটা দূর হয়ে যায়। তাছাড়া এলোভেরার মধ্যে যে পাফাইন‌ নামক উপাদান রয়েছে সেটা আপনার শরীরের মৃত কোষ কে দূর করে।
  • তাছাড়া আপনার মুখ কিংবা শরীরকে টান টান করে তুলবে। যার কারনে আপনার বয়স বেশি হলেও আপনাকে অনেক স্ট্রং লাগবে এবং খুব সুন্দর লাগবে। তাছাড়া আপনি অ্যালোভেরার সাথে এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিতে পারেন।
  • তাছাড়া আপনি যদি এলোভেরার সাথে হালকা লেবুর রস মিশিয়ে ১৫ মিনিট ধরে অপেক্ষা করেন আপনার মুখে লাগানোর পর। তাহলে আশা করি আপনার মুখ থেকে রোদে ফোড়া বাপ যেটা আছে সেটা চলে যাবে।
  • তাছাড়া আপনি এক চামচ এলোভেরা জেল এর সাথে মুলতানি মাটি মিশে নিতে পারেন। উপাদান দুটি ভালোভাবে মিশিয়ে নেওয়ার পর আপনার মুখে কিংবা দাগ ওয়ালা জায়গায় ১৫ থেকে ১৬ মিনিট পর্যন্ত লাগিয়ে নিন।
  • আপনি যদি এ নিয়মিত ব্যবহার করেন অর্থাৎ এই প্যাক টি যদি আপনি নিয়মিত ব্যবহার করেন তাহলে হয়তো আপনার মুখে যে ব্রণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সেটা অনেকটাই কমে যাবে।
  • এলোভেরা জেলের মাধ্যমে আপনার শরীর কিংবা মুখের মৃত কোষ দরকার জন্য যে মাস্ক তৈরি করা হয় সেটা আপনি নিজেই তৈরি করতে পারবেন। তার জন্য সর্বপ্রথম এক থেকে দুই চামচ জেল বের করে নিন এলোভেরা পাতা থেকে। এবং সেগুলো ভালোভাবে মিক্স করে নিন ব্যালেন্ডারের মাধ্যমে। তারপর এক কিংবা দুই চামচ ওটমিলের গুড়া এবং এক থেকে দুই চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। তারপর আপনার মুখ এবং গলা ভালোভাবে দোয়ার পরে এই মাস্ক 30 মিনিট ধরে লাগিয়ে নিন।
  • এলোভেরা জেল এর আরেকটা বিশেষ উপাদান হচ্ছে আপনি সেগুলো থেকে জেল বের করার পরে আপনি ফ্রিজের মধ্যে রেখে দিন। তারপর কোন সময় যদি আপনি কেটে যান কিংবা কোন আঘাত হয় তাহলে আপনি সেখানে লাগাতে পারেন। এবং প্রতিদিন ২-৩ বার করে লাগালে হয়তো আপনার এই ঘা খুব শীঘ্রই ভালো হয়ে যাবে।

আপনি বাজারের মধ্যে অনেক কম মূল্যে এই এলোভেরা পাতাটি পেয়ে যাবেন। এবং এই ঘরোয়া উপাদানটি আপনার শরীর কিংবা ত্বককে উজ্জ্বল রাখতে কিংবা মুখের না না জাতীয় সমস্যা দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে একজন অভিজ্ঞ ডাক্তার এর পরামর্শ নিতে পারেন।


চুলের জন্য এলোভেরার উপকারিতা

চুলের জন্য এলোভেরার উপকারিতা:- আশা করি এ পর্যন্ত আপনি এলোভেরার অনেক উপকারিতা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। কিন্তু এখন আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব চুলের জন্য এলোভেরা কিরকম উপকারী প্রদান করে থাকে। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক

  • চুল বৃদ্ধি করতে সহায়তা করেঃ- এলোভেরা সম্পর্কে একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, অ্যালোভেরা চুলের যে সমস্ত পুষ্টি প্রয়োজন সেগুলো মেঠাতে সাহায্য করে। তাছাড়া এলোভেরা মাথার রক্ত চলাচলে বৃদ্ধি করার মাধ্যমে আপনার চুলের গোড়া বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। মূলত এই ভাবেই আপনার চুল বাড়তি করতে এবং বেড়ে যাওয়ার জন্য সহযোগিতা করতে পারে। তাই আপনি এটাও অবিশ্বাস করতে পারবেন না যে এলোভেরা আপনার চুলের জন্য অনেক উপকারী এবং এটি চুল বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।
  • মাথার চুলকানি এবং খুশকি দূর করেঃ- এলোভেরা সম্পর্কে অন্য আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এটা কিনা মূলত মাথার খুশকি দূর করতে সহায়তা করে। যার কারণে এখন অনেক সময় দেখা যায় বাজারে যে সমস্ত চুলের কন্ডিশনার এবং শ্যাম্পু রয়েছে সেগুলোতে এই এলোভেরা জেল ব্যবহার করে থাকে। যার কারনে এটি ত্বকের মধ্যে যে সমস্ত চুলকানি রয়েছে সেগুলো অপসারণ করতে কিংবা কমাতেও সাহায্য করতে পারে বলে মনে হয়। এর থেকে আপনি এটা অস্বীকার করতে পারবেন না যে, আপনার মাথার চুলকানি এবং খুশকি দূর করতে সহায়তা করে।
  • মাথার চুল পড়া রোধ করেঃ- এলোভেরা সম্পর্কে গবেষণার মধ্যে এটি যে মাথার চুল পড়া রোধ করে এটি স্পষ্টভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এই গবেষণার মধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে যে এলোভেরার মধ্যে লাইসিন এবং সিস্টাইন নামক উপাদান রয়েছে যেগুলো মাথার চুল পড়া বন্ধ করতে অনেক সহায়তা করে থাকে। যার কারনে আপনার যদি মাথার চুল পড়ে যায় তাহলে আপনি এটার রোধ করার জন্য এলোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন।
  • এলোভেরাতে জীবাণুনাশক বৈশিষ্ট্য রয়েছেঃ-‌ এলোভেরা এমন একটি উপাদান যেটি কিনা এন্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রভাব সমৃদ্ধ। অ্যালোভেরাতে মোট ছয় ধরনের এন্টিসেপটিক এজেন্ট পাওয়া যায়। যার মধ্যে রয়েছে বিশেষত লুপিওল এবং স্যালিসিলিক অ্যাসিড এবং ইউরিয়া নাইট্রোজেন এবং সিনামোনিক অ্যাসিড এবং ফেনল এবং সালফার। যার কারণে এলোভেরা আপনার মাথার বিভিন্ন সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। তাই এটাকে আপনি কন্ডিশনার হিসেবেও নিমিষেই ব্যবহার করতে পারে।

রূপচর্চায় এলোভেরার উপকারিতা

আবার আমাদের মধ্যে অনেকেই আবার এলোভেরা নিয়ে একটি প্রশ্ন করে থাকে সেটি হচ্ছে রূপচর্চায় অ্যালোভেরার উপকারিতা কেমন। এই বিষয়ে আপনাদেরকে একটু ধারণা দেই।

আমি যদি আপনাদেরকে রূপচর্চার জন্য এলোভেরা আপনাকে কেমন উপকার দিবে সেটা বলি তাহলে অনেক কিছু বলা লাগবে। যেগুলো আশা করি আপনি আর্টিকেলটি শুরু থেকে ভালোভাবে পড়ে আসলে বিস্তারিতভাবে জেনে যাবেন।

কেননা আমি আপনাদেরকে মোটামুটি ভাবে চেষ্টা করেছি আজকের এই আর্টিকেলে এলোভেরার উপকার সম্পর্কে। এটা আপনার ত্বককে কেমন উজ্জ্বলতা প্রদান করতে পারে এইসব বিষয় নিয়ে আমি আলোচনা করেছি।

সুতরাং আমি আপনাকে রিকমেন্ড করব আপনি যেন আর্টিকেলটি ভালোভাবে উপর থেকে পড়ে আসেন। না হয় আপনি অনেক কিছু মিসটেক করতে পারেন যেগুলো হয়তো আপনার জন্য অনেক উপকারী এবং অনেক দরকারি।

বিঃদ্রঃ উপরে আমি আপনাদেরকে এলোভেরা সম্পর্কে অনেক কিছু বলেছি। তবে আপনারা যদি ডাক্তারের কাছ থেকে এই বিষয়ে পরামর্শ নেন তাহলে অবশ্যই ভালো হবে। আমার আর্টিকেলটি পড়ার পরে অবশ্যই একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন।

উপাসংহারঃ আজকের এই আর্টিকেলটি যদি আপনার ভালো লাগে অবশ্যই বন্ধু-বান্ধবদের কাছে শেয়ার করবেন। তাছাড়া আমি যেহেতু একজন মানুষ তাই আমার অবশ্যই ভুল হবে এটা আমি মানে। তাই আপনার যদি এখানে কোন প্রকার ভুল দেখতে পান তাহলে অবশ্যই কমেন্টের মাধ্যমে জানিয়ে দিবেন। যাচাইপূর্বক আমি সমাধান করে দেওয়ার চেষ্টা করব।

Next Post Previous Post
2 Comments
  • Asif
    Asif ২১ জুলাই, ২০২২ ৭:৪৭ AM

    3199810

  • Okay
    Okay ৩০ জুলাই, ২০২২ ১০:৩৯ AM

    Thank for you this helpful article

Add Comment
comment url